বিজিএমইএ ভবন সিলগালা অবশেষে - Alokitobarta
আজ : মঙ্গলবার, ১৬ই জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ১লা শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

বিজিএমইএ ভবন সিলগালা অবশেষে


আলোকিত বার্তা:রাজধানীর হাতিরঝিল লেকের পাড়ে অবৈধভাবে নির্মাণ করা বিজিএমইএ ভবন অবশেষে সিলগালা করে দিয়েছে রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (রাজউক)। এখন রাজউকের অনুমতি ছাড়া কেউ ভবনটিতে ঢুকতে পারবে না। ভবনটি শিগগির ভাঙা হবে।
ভবনটি অপসারণের অংশ হিসেবে এর মধ্যে থাকা বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের অফিসের মালামাল সরিয়ে নিতে চার দফায় সময় বেঁধে দেয়ার পর মঙ্গলবার (১৬ এপ্রিল) সন্ধ্যা ৭টা ১৫ মিনিটে এটি সিলগালা করে দেওয়া হয়।প্রত্যেক ফ্লোরে ফ্লোরে এবং ভবনের মূল ফটকে তালা দেয়ার সময় উপস্থিত ছিলেন রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের (রাজউক) পরিচালক (প্রশাসন) খন্দকার ওলিউর রহমান। তার সঙ্গে ছিলেন হাতিরঝিল প্রকল্পের পরিচালক এ এস এম রায়হানুল ফেরদৌস। তালা দেয়ার পর চাবি হস্তান্তর করা হয় পুলিশের কাছে।
এসময় খন্দকার ওলিউর রহমান সাংবাদিকদের জানান, বেশিরভাগ মালামালই সরিয়ে নেওয়া হয়েছে। তবু কিছু মালামাল রয়ে গেছে। যাদের মালামাল,তারা পরে আবেদন করলে রাজউক বিষয়টি বিবেচনা করতেও পারে।এর আগে,ভবনটিতে থাকা বিভিন্ন অফিসের মালামাল সরাতে চার দফা সময় বেঁধে দেওয়া হয়। প্রথম দফায় তাদের দুপুর ১২টার মধ্যে মালামাল সরিয়ে নিতে বলা হয়। এরপর আরেক দফা সময় বাড়ানো হয়। তৃতীয় দফায় সময় দিয়ে ৫টার মধ্যে অফিস খালি করতে বলা হয়। এরমধ্যেও সব মালামাল সরাতে না পারায় আবেদনের প্রেক্ষিতে সন্ধ্যা ৭টা পর্যন্ত সময় বাড়ানো হয়। শেষ তক সন্ধ্যা ৭টা ১৫ মিনিটে সিলগালা করে দেওয়া হয় ভবনটি।

বিকেলে রাজউকের পরিচালক (প্রশাসন) খন্দকার ওলিউর রহমান বলেন, আইনের ভিত্তিতে বিজিএমইএ ভবন অপসারণের কাজ শুরু হয়েছে। আমরা যে ভবন অপসারণ শুরু করেছি এটাও ভবন ভাঙার অংশ।তাছাড়া এখানে টেকনিক্যাল ও ম্যানেজমেন্টের বিষয় আছে, এগুলো শেষ হলেই আমরা ভবন ভাঙার কাজ শুরু করবো।এই বড় ভবনের নানা বিষয় দেখতে হচ্ছে, এখানে অনেকগুলো ব্যাংক আছে সেটাও দেখতে হচ্ছে। খুব দ্রুত সময়ের মধ্যে এ কাজ শেষ করতে পারবো এ কাজে মূল সহযোগী হবে চায়না এক্সপার্টরা। এখন ভবনে অফিস অপসারণের কাজ চলছে।হাতিরঝিল প্রকল্পের পরিচালক রায়হান ফেরদৌস তখন বলেন, মালামাল সরানোর পর আমরা ইউলিটি সেবা গ্যাস, বিদ্যুৎ বন্ধ করে দেবো। এরপর ভবন ভাঙার কাজে হাত দেবো। সেনাবাহিনীর সহায়তায় এ ভবনটি অপসারণের কাজ করা হবে। এর আগে র‌্যাংগস ভবন ভাঙতে গিয়ে প্রাণহানি ঘটে। তবে এ ভবন ভাঙতে ডিনামাইট বা নিয়ন্ত্রিত বিস্ফোরণ পদ্ধতি ব্যবহার করা হবে।বিজিএমইএ ভবন অপসারণে আপিল বিভাগের দেয়া এক বছর সময় শেষ হয়েছে গত ১২ এপ্রিল। গত বছরের ২ এপ্রিল সর্বোচ্চ আদালত ভবনটি অপসারণে তৈরি পোশাক ও রফতানিকারকদের শীর্ষ সংগঠন বিজিএমইএকে এক বছর ১০ দিন সময় দেন।

এরপর গত ৩ এপ্রিল উত্তরায় বিজিএমইএর নিজস্ব ভবনের উদ্বোধন হয়। সেখানে ১৩-তলা বিশিষ্ট দু’টি ভবনের নির্মাণ কাজ চলছে দ্রুতগতিতে। ওই ভবনের দু’টি ফ্লোরে অফিসের কার্যক্রম পরিচালিত হচ্ছে। ২০২০ সালের মধ্যে ওই ভবনের পুরো কাজ শেষ হবে।
কয়েক বছর আগে বিজয় সরণিতে র‌্যাংগস ভবন ভাঙতে গিয়ে বেশ কয়েকজন শ্রমিকের প্রাণহানির ঘটনা স্মরণ করে এ এস এম রায়হানুল ফেরদৌস বলেন, বিজিএমইএ ভবন ভাঙতে চীনা প্রকৌশলীদের সহযোগিতা নেয়া হবে। সর্বোচ্চ সতর্কতা অবলম্বন করা হবে। তবে এখানে বেশ কিছু টেকনিক্যাল বিষয় আছে, তেমনিভাবে ম্যানেজমেন্টের বিষয়ও আছে।

Top
%d bloggers like this: