নাজিরপুরে সংখ্যালগুর জমি দখলের পায়তারা - Alokitobarta
আজ : শুক্রবার, ২৩শে ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ১০ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

নাজিরপুরে সংখ্যালগুর জমি দখলের পায়তারা


স্টাফ রিপোর্টার,মোঃ মাসুম:পিরোজপুরের নাজিরপুরে এক হিন্দু পরিবারকে উচ্ছেদ করতে তার বসতবাড়িতে নতুন ঘর তৈরি করেছে স্থানীয় প্রভাবশালীরা। আর এ দখল ঠেকাতে থানা পুলিশের কাছে লিখিত অভিযোগ দেয়াসহ উপজেলার বিভিন্ন প্রভাবশালীদের দ্বারে দ্বারে ঘুরেও কোনও প্রতিকার পাননি ভুক্তভোগী পরিবারটি। ঘটনাটি ঘটেছে উপজেলার মালিখালী ইউনিয়নের তুতবাড়ি গ্রামে।ওই গ্রামের ভুক্তভোগী কিরণ চন্দ্র বিশ্বাসের থানায় দেওয়া অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, তিনি তার অসুস্থ ছেলেকে নিয়ে চিকিৎসার জন্য সম্প্রতি ভারতে যান। গত ১৬ এপ্রিল ভারত থেকে ফিরে এসে দেখেন তার বসতবাড়ি দখল করতে রান্নাঘরের পশ্চিম পাশে স্থানীয় জিল্লুর দাড়িয়ার ছেলে মিজান দাড়িয়ার নেতৃত্বে একটি টিনের দোচালা ঘর তৈরি করা হয়েছে। শুক্রবার সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, ওই বাড়ির পশ্চিম পাশে কিরণ চন্দ্র বিশ্বাসের রান্নাঘরের কাছে তৈরি করে রাখা হয়েছে টিনের নতুন একটি দোচালা ঘর।

স্থানীয় সনাতন বিশ্বাস জানান, গেল ১১ এপ্রিল সকাল আটটার দিকে ওই জমির মালিক বাড়ি না থাকার সুযোগে স্থানীয় জিল্লুর দাড়িয়ার ছেলে এলাকার শীর্ষ সন্ত্রাসী মিজান দাড়িয়ার নেতৃত্বে ফয়জুল দাড়িয়া, কালাম দাড়িয়া, হাসান শেখসহ আরও ৮-১০ জন লোক দেশীয় অস্ত্রসহ ওই বাড়িতে অবস্থান নেয়। কাউকে কিছু না বলেই নতুন একটি ঘর তৈরির কাজ শুরু করে। এ সময় তারা বাধা দিলে তাদের হত্যার হুমকি দেয়।ভুক্তভোগী কিরণ চন্দ্র বিশ্বাসের স্ত্রী ফুলমালা বিশ্বাস ও পুত্রবধূ চম্পা বিশ্বাস জানান, দখলে নেতৃত্ব দেওয়া মিজান দাড়িয়া ওই ঘরটি তৈরি সময় জমিটি স্থানীয় ঝনঝনিয়া গ্রামের আলেম দাড়িয়ার মেয়ে রহিমা বিবির বলে জানায়। আমরা ঘর তৈরিতে বাধা দিতে গেলে তাদের হাতে থাকা দেশীয় অস্ত্র দিয়ে আমাদের হত্যার হুমকি দেয় ও আমাদেরকে ঘরে অবরুদ্ধ করে রাখে। স্থানীয় সোহরাফ হোসেন জানান, ওই সকল সন্ত্রাসীরা ঘর তুলতে আসলে স্থানীয়রা বাধা দেয়। এ সময় সন্ত্রাসীরা তারা তাদের সঙ্গে খারাপ আচরণ করে মারধরের হুমকি দেয়। তাদের হাতে দেশীয় অস্ত্র থাকার কারণে তারা আর সামনে যায়নি।

এ ব্যাপারে অভিযুক্ত মিজান দাড়িয়ার সঙ্গে মুঠোফোনে কথা হলে তিনি জানান, ওই সম্পত্তি তার ফুফু রহিমা বিবির। দীর্ঘদিন ধরে কিরণ বিশ্বাস অবৈধভাবে ভোগদখল করে আসছিলো। রহিমার কোন ছেলে সন্তান না থাকায় মিজান তাকে ওই সম্পত্তি দখলে সহায়তা করেছে। এ ব্যাপারে মাটিভাঙ্গা পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ পুলিশ পরিদর্শক খান মো. মিজানুর রহমান জানান, এ ঘটনায় কিরণ বিশ্বাস থানায় লিখিত অভিযোগ করেছেন। বিষয়টি তদন্ত পূর্বক আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Top
%d bloggers like this: