সুপার এইটে এক পা বাংলাদেশের নেদারল্যান্ডসকে হারিয়ে - Alokitobarta
আজ : মঙ্গলবার, ১৬ই জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ১লা শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

সুপার এইটে এক পা বাংলাদেশের নেদারল্যান্ডসকে হারিয়ে


ইমন হাওলাদার:সংক্ষিপ্ত স্কোর: বাংলাদেশ ২০ ওভারে ১৫৯/৫; নেদারল্যান্ডস ২০ ওভারে ১৩৪/৮

বিক্রমজিৎ সিং ও সাইব্র্যান্ড এঙ্গেলব্রেখট বাংলাদেশের জন্য দুঃস্বপ্ন হয়ে উঠেছিলেন। মাহমুদউল্লাহ আনেন প্রথম ব্রেকথ্রু, ফেরান বিক্রমজিৎকে। তারপর এঙ্গেলব্রেখট মারকুটে ব্যাটিংয়ে পথের কাঁটা হয়ে দাঁড়ান। ১৫তম ওভারে রিশাদ হোসেন বল হাতে নিয়ে ম্যাচের গতি পাল্টে দেন। ব্যাকফুটে থাকা বাংলাদেশকে উচ্ছ্বাসে ভাসান তিনি। ওই ওভারে এঙ্গেলব্রেখটকে আউট করেন, এক বল বিরতি দিয়ে স্টাম্পিং হন বাস ডি লিড। সাকিব আল হাসান মাত্র ৫ রান দেন। মোস্তাফিজুর রহমান মাত্র ১ রান দিয়ে এক উইকেট নেন। রিশাদ ফিরেই আরেকটি উইকেট নেন। ৩ উইকেটে ১১১ রান করা নেদারল্যান্ডস ১১৭ রান করে ৭ উইকেট হারিয়ে। বাংলাদেশের জয় তখন সময়ের ব্যাপার।শেষ দুই ওভারে লাগতো ৩৬ রান। মোস্তাফিজ ১৯তম ওভারে দিলেন মাত্র ৩ রান। তাসকিন আহমেদকে চতুর্থ বলে চার মারলেও তা শুধু ব্যবধানই কমিয়েছে। বাংলাদেশি পেসার শেষ বলে টিম প্রিঙ্গলকে বোল্ড করেন। ৮ উইকেটে ১৩৪ রানে ডাচদের থামিয়ে ২৫ রানের জয় পায় বাংলাদেশ। তিন ম্যাচে দুটি জিতে সুপার এইটে এক পা দিয়ে রাখলো বাংলাদেশ। শেষ ম্যাচ তারা খেলবে নেপালের বিপক্ষে।

রিশাদের তৃতীয় উইকেট

রিশাদ হোসেন তার শেষ ওভারের প্রথম বলে লোগান ফন বিককে ফিরতি ক্যাচে ফেরালেন। দুই ওভারে চার বলে তিন উইকেট নেন তিনি। ১১৭ রানে সপ্তম উইকেট পড়লো নেদারল্যান্ডসের।

ডাচ অধিনায়ককে ফেরালেন মোস্তাফিজ

ব্যাকফুটে চলে যাওয়া বাংলাদেশ দারুণভাবে ঘুরে দাঁড়ালো। রিশাদ হোসেনের ব্রেকথ্রুর পর ৬ রানে তিন উইকেট তুলে নিয়েছে তারা। ১৭তম ওভারে প্রথম বলে নেদারল্যান্ডস অধিনায়ক স্কট এডওয়ার্ডসকে জাকের আলীর ক্যাচ বানালেন। ২৩ বলে ৩ চারে ২৫ রানে আউট হন এডওয়ার্ডস। মোস্তাফিজ মাত্র ১ রান দেন ওই ওভারে। ১১৭ রানে ষষ্ঠ উইকেট হারালো নেদারল্যান্ডস।

রিশাদের জোড়া আঘাতে বাংলাদেশের স্বস্তি

সাইব্র্যান্ড এঙ্গেলব্রেখট ১৩তম ওভারে তাসকিন আহমেদকে ছক্কা মেরে বল মাঠের বাইরে পাঠান। দুই বল আগে একটি চারও মারেন ডাচ ব্যাটার। পরের ওভারে অধিনায়ক স্কট এডওয়ার্ডস ডাবলস নিয়ে দলীয় স্কোর একশ ছাড়ান। অবশেষে বাংলাদেশকে অস্বস্তিতে রাখা এঙ্গেলব্রেখটকে ফেরাতে পারলেন রিশাদ হোসেন। জোড়া আঘাত করেছেন তিনি। ১৫তম ওভারের চতুর্থ বলে এঙ্গেলব্রেখটকে তানজিম হাসান সাকিবের ক্যাচ বানান বাংলাদেশি স্পিনার। এক বল বিরতি দিয়ে লিটন দাসের ক্ষিপ্রতায় নতুন ব্যাটার বাস ডি লিড স্টাম্পিং হন। ১৫ ওভারে ৫ উইকেটে ১১১ রান নেদারল্যান্ডসের।

বল হাতে নিয়েই মাহমুদউল্লাহর আঘাত

পাওয়ার প্লের শেষ দুই ওভারে টানা দুটি উইকেট নিয়ে বাংলাদেশ স্বস্তি ফিরিয়েছিল। প্রথম ৬ ওভারে ৩৬ রান দেয় তারা। সপ্তম ওভারে সাকিব আল হাসানকে টানা দুটি ছক্কা মেরে রানের গতি বাড়ান বিক্রমজিৎ সিং। অষ্টম ওভারের প্রথম বলে মোস্তাফিজুর রহমানের সরাসরি থ্রো স্টাম্পে আঘাত করলে সাইব্র্যান্ড এঙ্গেলব্রেখট প্যাভিলিয়নে থাকতেন। ওই ওভারে মোস্তাফিজ মাত্র ৪ রান দেন। রিশাদ হোসেন ছিলেন বেশ খরুচে। নবম ওভারে একটি করে ছয় ও চার হজম করে রান দেন তিনি ১৪টি। ৩৭ রানের এই জুটি ভেঙে যায় মাহমুদউল্লাহর বলে। দশম ওভারে বল হাতে নিয়ে সফল এই স্পিনার। তার তৃতীয় বলে ২৬ রান করে লিটন দাসের ক্যাচ হন বিক্রমজিৎ। ৯.৩ ওভারে ৬৯ রানে তিন উইকেট হারালো ডাচরা। ১০ ওভার শেষে তাদের রান ৭৪।

আরেক ওপেনারকে ফেরালেন তানজিম

পাওয়ার প্লেতে নেদারল্যান্ডসের দুই ওপেনারকে তুলে নিলো বাংলাদেশ। তাসকিন আহমেদের বলে মাইকেল লেভিট ১৮ রানে আউট হন। ষষ্ঠ ওভারে ম্যাক্স ও’ডাউডকে ফিরতি ক্যাচে ফেরান তানজিম হাসান সাকিব। ৫.৪ ওভারে ৩২ রানে দুই উইকেট হারালো নেদারল্যান্ডস। পাওয়ার প্লেতে ৩৬ রান দিয়ে ২ উইকেট নিয়েছে বাংলাদেশ।

ওপেনিং জুটি ভাঙলেন তাসকিন

পঞ্চম ওভারে নেদারল্যান্ডসের ওপেনিং জুটি ভেঙে দিলেন তাসকিন আহমেদ। মাইকেল লেভিট ও ম্যাক্স ও’ডাউড চার ওভারে ২২ রান তুলে বাংলাদেশকে অস্বস্তিতে রেখেছিলেন। তাসকিন তার দ্বিতীয় ওভারের দ্বিতীয় বলে লেভিটকে তাওহীদ হৃদয়ের ক্যাচ বানান। ডাচ ওপেনার ১৬ বলে ২ চার ও ১ ছয়ে ১৮ রান করেন।

চলতি টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে দুটি ম্যাচ খেলেই পরে ব্যাট করতে হয়েছিল বাংলাদেশকে। এবার টসে হেরে আগে ব্যাটিংয়ে নেমে নেদারল্যান্ডসের বিপক্ষে ৫ উইকেটে ১৫৯ রান করলো তারা। সাকিব আল হাসান তার ভক্তদের হতাশা কাটালেন দারুণ এক ইনিংস খেলে। চতুর্থ ওভারে ক্রিজে নেমে ৪৬ বলে ৯ চারে ৬৪ রানে অপরাজিত ছিলেন তিনি। শেষ ওভারে স্কোরবোর্ডে ১২ রান যোগ করতে দুটি চার মারেন বাঁহাতি ব্যাটার। তার আগে পাওয়ার প্লের শেষ ওভারে ১৯ রান তোলেন চারটি চার মেরে।শেষ দুই ওভারে বাংলাদেশ করেছে ২৬ রান। জাকের আলী শেষের আগের ওভারে তিন চার মারেন। ৭ বলে ১৪ রানে অপরাজিত ছিলেন তিনি। বাংলাদেশের স্কোরবোর্ডে শেষ ৫ ওভারে যোগ হয়েছে ৫৪ রান। মাহমুদউল্লাহ ও সাকিবের পঞ্চম উইকেট জুটি ৪১ রান তোলে। তার আগে তানজিদ হাসান তামিমের সঙ্গে বাঁহাতি ব্যাটারের জুটিতে আসে ৪৮ রান। ২৬ বলে ৫ চার ও ১ ছয়ে ৩৫ রান করেন তানজিদ। মাহমুদউল্লাহ ২১ বলে ২৫ রানের কার্যকরী ইনিংস খেলেন।

নেদারল্যান্ডসের পক্ষে আরিয়ান দত্ত ও পল ফন মিকেরেন দুটি করে উইকেট নেন।

আগের ছয় ইনিংসে সর্বোচ্চ রান ছিল ৩০। চলতি টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে সেকেন্ড হোম যুক্তরাষ্ট্রে দুটি ম্যাচ খেলে দুই অঙ্কের ঘর ছুঁতে পারেননি একবারও। ওয়েস্ট ইন্ডিজে নিজের খোলস ছেড়ে বেরিয়ে আসলেন সাকিব আল হাসান। নেদারল্যান্ডসের বিপক্ষে ঝড়ো শুরুর আভাস দেন তিনি। পাওয়ার প্লের শেষ ওভারে ১৯ রান তোলেন বাঁহাতি ব্যাটার। টি-টোয়েন্টি ক্যারিয়ারের ১৩তম ও বিশ্বকাপে চতুর্থ হাফ সেঞ্চুরি করলেন তিনি ৩৮ বল খেলে। ১৮তম ওভারে নেদারল্যান্ডসের বোলার পল ফন মিকেরেনের দ্বিতীয় বলে সিঙ্গেল নিয়ে ফিফটি উদযাপন করেন সাকিব। পরের বলে মাহমুদউল্লাহ ক্যাচ হন। ২১ বলে দুটি করে চার ও ছয়ে ২৫ রান করে সাইব্র্যান্ড এঙ্গেলব্রেখটকে ক্যাচ দেন তিনি, ভাঙে ৩২ বলে ৪১ রানের জুটি। ১৭.৩ ওভারে ১৩০ রানে পঞ্চম উইকেট হারালো বাংলাদেশ।

মাহমুদউল্লাহর চারে বাংলাদেশের একশ

১৪তম ওভারের শেষ বলে নেদারল্যান্ডসের বোলার বাস ডি লিডকে চার মারলেন মাহমুদউল্লাহ। বাংলাদেশের স্কোর একশ ছাড়িয়ে গেলো। চার উইকেট হারিয়েছে তারা। ১৫ ওভার শেষে রান ১০৫।

৯ রানে হৃদয়ের বিদায়

টিম প্রিঙ্গলের বলে বোল্ড হলেন তাওহীদ হৃদয়। যুক্তরাষ্ট্রে ঝলক দেখানো বাংলাদেশি ব্যাটার ওয়েস্ট ইন্ডিজে সংগ্রাম করছিলেন। ১৫ বলে ৯ রান করে ১৩তম ওভারের প্রথম বলে আউট হন তিনি। ৮৯ রানে চতুর্থ উইকেট হারালো বাংলাদেশ।

তানজিদ হাসান তামিমের বড় শট এবার আর বাউন্ডারি পার হলো না। বাতাসের প্রতিকূলে তার পুল শটে জোর ছিল না। ডিপ ব্যাকওয়ার্ড স্কয়ার লেগে বাস ডি লিড সহজেই ক্যাচ নিলেন। পল ফন মিকেরেনের বলে ভাঙলো সাকিব আল হাসানের সঙ্গে তার ৪৮ রানের জুটি। ২৬ বলে ৫ চার ও ১ ছয়ে ৩৫ রানে আউট হলেন তানজিদ। ৮.৩ ওভারে ৭১ রানে তৃতীয় উইকেট হারালো বাংলাদেশ। ১০ ওভার শেষে বাংলাদেশ ৩ উইকেট হারিয়ে করেছে ৭৬ রান। সাকিব ২৩ বলে ৩১ রানে অপরাজিত আছেন। তাওহীদ হৃদয় ৬ বল খেলে ৩ রানে টিকে আছেন।

তানজিদ-সাকিব ঝড়ে পাওয়ার প্লেতে বাংলাদেশের ৫৪ রান

তৃতীয় ওভারে তানজিদ হাসান তামিম এক ছয় ও দুই চারে ভিভিয়ান কিংমার কাছ থেকে ১৮ রান তুলে নেন। আর পাওয়ার প্লের শেষ ওভারে চারটি চারে ১৯ রান তোলেন সাকিব আল হাসান। প্রথম ছয় ওভারে বাংলাদেশের রান ২ উইকেটে ৫৪। প্রথম সাত বলে ৭ রান করা সাকিব এই সময়ে ১৩ বলে ৫ চারে ২৫ রান করে অপরাজিত। তানজিদ ১৮ বলে ৩ চার ও ১ ছয়ে ২৩ রানে খেলছিলেন। আরিয়ান দত্তের টানা দুই ওভারে নাজমুল হোসেন শান্ত ও লিটন দাসের বিদায়ের ক্ষত পুষিয়ে দিয়েছেন তারা।

সাইব্র্যান্ডের অবিশ্বাস্য ক্যাচে প্যাভিলিয়নে লিটন

অসাধারণ ক্যাচ নিলেন সাইব্র্যান্ড এঙ্গেলব্রেখট। মাত্র ২ বলে ১ রান করে বিদায় নিলেন লিটন দাস। বাংলাদেশি ব্যাটারের সুইপ শটে বল উড়ে যায় স্কয়ার লেগ অঞ্চলে, স্কয়ারের পেছনে ছিলেন সাইব্র্যান্ড। দৌড়ে এসে নিজেকে শূন্যে ভাসিয়ে দিলেন সামনের দিকে। মাটি থেকে কয়েক ইঞ্চি উপরে থাকতে বল লুফে নিলেন। আরিয়ান দত্ত টানা দুই ওভারে দুই উইকেট পেলেন। ৩.১ ওভারে ২৩ রানে দুই উইকেট নেই বাংলাদেশের।

আগের ওভারে তানজিদ হাসান তামিম দুই চার ও এক ছক্কায় ১৮ রান যোগ করেন স্কোরবোর্ডে।

তিন বল খেলে আউট শান্ত
নেদারল্যান্ডসের বিপক্ষে প্রথম ওভারে মাত্র ৩ রান তোলে বাংলাদেশ। ইনিংসের চতুর্থ বলে নিজের রানের খাতা খোলেন নাজমুল হোসেন শান্ত। পরের ওভারে আর দুই বল খেললেন, রান যোগ হলো না একটিও। ৩ বল খেলে ১ রান করে বিদায় নিলেন বাংলাদেশ অধিনায়ক্। রিভার্স সুইপ করে ফার্স্ট স্লিপে বিক্রমজিৎ সিংকে ক্যাচ দেন শান্ত। প্রথম দুই ম্যাচে ৭ ও ১৪ রান করেন তিনি। ১.২ ওভারে ৩ রানে প্রথম উইকেট হারালো বাংলাদেশ।

নির্ধারিত সময়ের আধঘণ্টা পর হলো টস।নেদারল্যান্ডস অধিনায়ক স্কট এডওয়ার্ডস টসে জিতে বোলিংয়ের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। বাংলাদেশকে আগে ব্যাটিং করতে হচ্ছে।বাংলাদেশ অধিনায়ক নাজমুল হোসেন শান্ত বলেছেন, আমাদের প্রথমে ব্যাটিং করতে সমস্যা নেই। এটা ভালো উইকেট, কিন্তু নতুন বলের বিপক্ষে আমাদের সতর্ক থাকতে হবে।

বাংলাদেশ: তানজিদ হাসান তামিম, নাজমুল হোসেন শান্ত (অধিনায়ক), লিটন দাস (উইকেটকিপার), তাওহীদ হৃদয়, সাকিব আল হাসান, মাহমুদউল্লাহ, জাকের আলী, তাসকিন আহমেদ, তানজিম হাসান সাকিব, রিশাদ হোসেন, মোস্তাফিজুর রহমান।

নেদারল্যান্ডস: মাইকেল লেভিট, ম্যাক্স ও’ডাউড, বিক্রমজিৎ সিং, সাইব্র্যান্ড এঙ্গেলব্রেখট, স্কট এডওয়ার্ডস (অধিনায়ক, উইকেটকিপার), বাস ডি লিড, লোগান ফন বিক, টিম প্রিঙ্গল, আরিয়ান দত্ত, পল ফন মিকেরেন, ভিভিয়ান কিংমা।

বাংলাদেশ বনাম নেদারল্যান্ডস: বৃষ্টিতে টস হতে বিলম্ব

শ্রীলঙ্কাকে হারিয়ে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে দারুণ শুরু হয়েছিল বাংলাদেশের। তারপর দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে আশা জাগিয়েও হারতে হয়েছে। তবে টিকে আছে সুপার এইটের সম্ভাবনা। এজন্য আপাতত হারাতে হবে নেদারল্যান্ডসকে। তাহলেই পরের পর্বে ওঠার কাজ অনেকটা সহজ হয়ে যাবে। বৃষ্টির কারণে বৃহস্পতিবার নির্ধারিত সময়ে টস শুরু হয়নি, পিচ ঢেকে রাখা হয়েছে কাভার দিয়ে।

দুই দল দুটি করে ম্যাচ খেলে একটি করে জয় ও হার দেখেছে। গত বছর ওয়ানডে বিশ্বকাপে ডাচরা হারিয়েছিল বাংলাদেশকে। তবে টি-টোয়েন্টিতে হেড টু হেডে ৩-১ এ এগিয়ে লাল সবুজ জার্সিধারীরা।

সুপার এইট মিশনে এবার বাংলাদেশের সামনে নেদারল্যান্ডস

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে যুক্তরাষ্ট্র পর্বে দুই ম্যাচ খেলার পর বাংলাদেশ দল এখন ক্যারিবীয় দ্বীপপুঞ্জে। টুর্নামেন্টে বাংলাদেশ কতদূর যাবে তা বলা যাচ্ছে না এখনই। তবে পরের সবগুলো ম্যাচই বাংলাদেশকে খেলতে হবে ওয়েস্ট ইন্ডিজে। এদিকে, শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে জয়ের পর নিউইয়র্কে দক্ষিণ আফ্রিকার কাছে হারলেও সুপার এইটে যাওয়ার সম্ভাবনা এখনও টিকে আছে বাংলাদেশের। বৃহস্পতিবার ডাচদের হারাতে পারলেই অনেকটা নিশ্চিত হয়ে যাবে বাংলাদেশের সুপার এইট পর্ব। বৃহস্পতিবারের ম্যাচটি রাত সাড়ে ৮টায় সরাসরি সম্প্রচার করবে নাগরিক টেলিভিশন।

Top
%d bloggers like this: