বর্ষবরণের আয়োজনে চলছে নানান প্রস্তুতি বরিশালে - Alokitobarta
আজ : সোমবার, ১৭ই জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ৩রা আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

বর্ষবরণের আয়োজনে চলছে নানান প্রস্তুতি বরিশালে


আলোকিত বার্তা:দিন যত এগোচ্ছে ততই এগিয়ে আসছে বাঙালির প্রাণের উৎসব পহেলা বৈশাখ। বাঙালির এ বাঙালির প্রাণের উৎসবকে সামনে রেখে প্রস্তুতির কমতি নেই বরিশালবাসীর। নতুন বছরকে বরণ করতে শহর থেকে গ্রাম সর্বত্রই চলছে শেষ মুহূর্তের প্রস্তুতি।প্রতি বছরের মতো এবারও বর্ণাঢ্য মঙ্গল শোভাযাত্রাসহ নানা আয়োজন নিয়ে এখন ব্যস্ত হয়ে উঠেছেন সবাই। সাধ ও সাধ্যের সমন্বয় ঘটিয়ে সার্বজনীন এ উৎসবের অংশ হতে সর্বত্রই চলছে শেষ মুহূর্তের জাঁকজমক প্রস্তুতি।মঙ্গল শোভাযাত্রার আয়োজন নিয়ে বরিশালে দিন-রাত ব্যস্ত সময় পার করছে বিভিন্ন সংগঠন ও শিল্পীরা। আবহমান বাংলার সংস্কৃতির বিভিন্ন চিত্র ফুটিয়ে তুলতেই তাদের এ ব্যস্ততা। চারুকলা বরিশালের ২৮তম আয়োজনে আগাম সব প্রস্তুতি চলছে নগরের বীরশ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর সড়কে তাদের অস্থায়ী কার্যালয়ে।

সেখানে চারুকলার ছাত্র-ছাত্রী,সংগঠক ও শিল্পীরা নতুন করে তৈরি করছেন কৃত্তিম বাঘ, টাট্টু ঘোড়া, পাখিসহ নানান ভাস্কর্য।
কাগজের তৈরি কারুকাজ হাতে একশিশু, বরিশালের সমন্বয়ক রনি দাস বলেন,‘মস্তক তুলে দাও অনন্ত আকাশে’এ স্লোগানে এবারের বৈশাখ উৎসবের আয়োজন করা হচ্ছে। সবকিছু ঠিক থাকলে পহেলা বৈশাখের দিন সকাল ৮ টায় অশ্বিনী কুমার হল প্রাঙ্গণে অনুষ্ঠিত হবে চারুকলার আয়োজনে বৈশাখ বরণের দুই দিনব্যাপী আয়োজন।ওইদিন সকাল পৌনে ৮ টায় নজরুল সাংস্কৃতিক জোট বর্ষবরণের সূচনা সংগীত পরিবেশন করবেন। এরপর সেখানে গুণীজন ও মুক্তিযোদ্ধাদের রাখি পড়িয়ে সম্মাননা জানানো হবে। এরপর ৮ টায় অশ্বিনী কুমার হল প্রাঙ্গণ থেকে একটি মঙ্গল শোভাযাত্রা বের করে নগর বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করা হবে।

মঙ্গল শোভাযাত্রা শেষে অশ্বিনী কুমার হল প্রাঙ্গণে দুই দিনব্যাপী লোকজ সংস্কৃতি প্রদর্শন ছাড়াও বৈশাখ আয়োজনে সঙ্গীত, নৃত্য ও যাত্রাপালা পরিবেশন করবেন গণশিল্পী সংস্থা, প্রান্তিক, বরিশাল থিয়েটার ও বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় নাট্যদল।চারুকলার পাশাপাশি উদীচী শিল্পী গোষ্ঠী প্রতিবছরের ধারাবাহিকতায় এবারেও আয়োজন করেছে নানান অনুষ্ঠানের। উদীচী শিল্পী গোষ্ঠী বরিশাল জেলা সংসদ বিগত ৩৭ বছরের ধারাবাহিকতায় এবছরও বাঙালির প্রাণের উৎসব বাংলা নববর্ষ-১৪২৬ বরণ উপলক্ষে ব্রজমোহন বিদ্যালয় মাঠে ব্যাপক কর্মসূচির আয়োজন করেছে।

এদিকে পহেলা বৈশাখে জেলা প্রশাসনের ও বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের পক্ষ থেকেও পৃথক মঙ্গল শোভাযাত্রাসহ নানান কর্মসূচি হাতে নেওয়া হয়েছে। এছাড়া বর্ষবরণ উপলক্ষে শব্দাবলী গ্রুপ থিয়েটারসহ নানান সাংস্কৃতিক সংগঠন বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করবে। পাশাপাশি নগরের প্লানেট পার্কেও মেলার পাশাপাশি সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে। থাকছে বাণিজ্য মেলায়ও বিশেষ ছাড়। পাশাপাশি জেলার প্রতিটি উপজেলাই গ্রামীণ পর্যায়ে রয়েছে গ্রামীণ বৈশাখী মেলার আয়োজন।বর্ষবরণকে কেন্দ্র করে নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদারে ব্যাপক প্রস্তুতি নিয়েছে বরিশাল মহানগর ও জেলা পুলিশ।মাটির তৈরি কারুকাজ,বাঙালির প্রাণের উৎসবকে কেন্দ্র করে গত এক মাস ধরে ব্যস্ত রয়েছেন বরিশালের গৌরনদী, আগৈলঝাড়া, বাকেরগঞ্জ উপজেলাসহ বিভিন্ন এলাকার মৃৎশিল্পীরা।

বাহারি ও হরেক রকম ডিজাইনের ছোট-বড় খেলনা তৈরি করেছেন বৈশাখী মেলায় বিক্রির জন্য। এরমধ্যে রয়েছে-মাটির হাঁড়ি-পাতিল, রবি ঠাকুর, কাজী নজরুল, বঙ্গবন্ধু, গণেশ পাগল, মা সারদাসহ বিশিষ্ট ব্যক্তিদের প্রতিকৃতি, পুতুল, হাতি, ঘোড়া, বানর, সিংহ, দোয়েল, কচ্ছপ, মাছ, হাঁস, মুরগির ডিম ইত্যাদি। এছাড়া ফলের মধ্যে আম, জাম, কাঁঠাল, লিচু, পেয়ারা, তাল ইত্যাদি। পহেলা বৈশাখ থেকে পুরো মাস চলবে এ ব্যবসা। আগৈলঝাড়া উপজেলার উত্তর শিহিপাশা গ্রামের তরণী পাল ও জয়দেব পাল জানান, আমাদের পূর্ব পুরুষেরা এ পেশার সঙ্গে জড়িত ছিলেন, তাই আমরা সেই ঐতিহ্য ধরে রাখার চেষ্টায় আছি। সারা বছরই আমরা মাটির জিনিস তৈরি করি। সিরামিক, প্লাস্টিক ও ধাতব তৈজসপত্রের জন্য আমাদের শিল্পে অনেকটাই ধ্বস নেমেছে। যখন কোনো মেলা বসে তখন আমরা মেলার জন্য খেলনা তৈরি করি। এটা আমাদের উপরি আয়। কুমারপাড়ায় চৈত্র মাসে চলে মাটির খেলনা ও তৈজসপত্র তৈরির কাজ। বৈশাখ মাসজুড়ে বিভিন্ন মেলায় চলে বিক্রি। এসব মাটির খেলনার দাম ৩০ টাকা থেকে ১০০ টাকা পর্যন্ত।

Top
%d bloggers like this: