অপেক্ষায় ব্যবসায়ীরা ইলিশের - Alokitobarta
আজ : সোমবার, ২০শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ৬ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদঃ
২৯৮ তম পর্ষদ সভা অনুষ্ঠিত বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্পোরেশনের লড়াইয়ের গল্প গোটা বিশ্বের কাছে তুলে ধরাই.......অঙ্গীকার হওয়া উচিত পায়রা বন্দরের সঙ্গে সড়ক ও রেলের কানেকটিভিটি বাড়াতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের নির্দেশ মেট্রোরেলের ভাড়ার ওপর ভ্যাট নেওয়ার সিদ্ধান্ত অগ্রহণযোগ্য চাকরির পেছনে ছুটে না বেড়িয়ে চাকরি দেওয়ার মানসিকতা তৈরি করুন বরিশাল বিমানবন্দর এরিয়া ভাঙ্গন রোধে কাজ করছে সরকার বিআরটিসির অগ্রযাত্রায় সাহসিক পদক্ষেপ,সাফল্যের মহাসড়কে অদম্য যাত্রা জুজুৎসুর নিউটনের যৌন নিপীড়নের ভয়ংকর তথ্য লুটপাটের স্বর্গরাজ্যে পরিণত করেছে বিদ্যুৎ খাতকে বেতন বৃদ্ধির দাবি জানিয়েছে তৃতীয় শ্রেণি সরকারি কর্মচারী সমিতি

অপেক্ষায় ব্যবসায়ীরা ইলিশের


আলোকিত বার্তা:প্রজনন মৌসুমের কারণে দেশের ৬টি অভয়াশ্রমে গত ১ মার্চ থেকে ৩০ এপ্রিল পর্যন্ত ইলিশ শিকারে নিষেধাজ্ঞা ছিলো। এর মধ্যে ৩০ এপ্রিল (মঙ্গলবার) দিবাগত রাত ১২টায় নিষেধাজ্ঞা শেষ হওয়ার পর থেকেই জেলেরা অভয়াশ্রমগুলোতে ইলিশ শিকারে নেমেছেন।যদিও এখন পর্যন্ত বরিশালের পোর্টরোডে অবস্থিত একমাত্র বেসরকারি মৎস্য অবতরণ কেন্দ্রে এর প্রভাব পড়েনি। তবে বৃহস্পতিবার (০২ মে) থেকে ইলিশের আমদানি বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে বাজারের চিত্র বদলাতে পারে বলে জানিয়েছেন ব্যবসায়ীরা। বর্তমানে ইলিশের আমদানি কম থাকায় বাজারে ইলিশসহ সব মাছের দাম বাড়তি বলে জানিয়েছেন তারা।

বুধবার (০১ মে) বরিশাল পোর্টরোডের রসুলপুর মৎস্য অবতরণ কেন্দ্র ঘুরে দেখা যায়, খুবই স্বল্প পরিমাণে দেশীয়সহ বিভিন্ন প্রজাতির মাছ রয়েছে অবতরণ কেন্দ্রটিতে। আর যে ইলিশ আজ এ অবতরণকেন্দ্রে এসেছে মোকামের তুলনায় তা খুবই কম। তাই অনেকটা ফাঁকা বাজারে অনেকেই ইলিশ কেনায় আগ্রহ দেখাননি। আর যে ইলিশওবা পাওয়া গেছে তার মধ্যে মাঝারি আকারের ইলিশের পরিমাণই বেশি। অল্প কিছু শ্রমিক ইলিশের কাজ নিয়ে ব্যস্ত সময় পার করলেও কর্মযজ্ঞের সচলতার ছাপ দেখা যায়নি অবতরণ কেন্দ্রে। আবার হাতেগোনা কয়েকটি বরফ ভাঙার কল চালু থাকলেও বেশিরভাগই নিস্তব্দতার মধ্য দিয়ে দিন কাটিয়ে দিচ্ছে। মৎস্য ব্যবসায়ীরা জানান, বর্তমানে পাইকারি বাজরে মণপ্রতি কেজি সাইজের ইলিশ ৭২ থেকে ৭৫ হাজার টাকায় বিক্রি হচ্ছে। আর ১ কেজি ২শ’ গ্রাম ওজনের ইলিশ বিক্রি হচ্ছে ৮০ থেকে ৯০ হাজার টাকায় এবং দেড়কেজি সাইজের ইলিশ বিক্রি হচ্ছে ১ লাখ ২০ থেকে ১ লাখ ৩০ হাজার টাকায়।অপরদিকে কেজির নিচের ৬ থেকে ৯শ’ গ্রাম ওজনের ইলিশ মণপ্রতি ৫৩-৫৪ হাজার টাকায়, ৫শ’ গ্রাম ওজনের ইলিশ ৩৮ থেকে ৪০ হাজার এবং সবচেয়ে ছোট গোটলা ইলিশ ২৬ থেকে ২৭ হাজার টাকায় বিক্রি হচ্ছে। আর এ দর বিগত কয়েকদিন ধরেই স্থির রয়েছে।

আড়তদার মো.নাছির উদ্দিন আলোকিত বার্তাকে জানান,অভয়াশ্রমে ২ মাসের নিষেধাজ্ঞার কারণে বাজারে ইলিশের পরিমাণ অনেক কম। তবে গতকাল নিষেধাজ্ঞা শেষ হওয়ার পর রাত ১২টা থেকেই অধিকাংশ জেলে ইলিশ শিকারে নেমেছেন। বাকিরা আজ সকালে নেমেছেন। আগামীকাল সকাল থেকে ইলিশের আমদানি কিছুটা বাড়বে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন তিনি। ইলিশের আমদানি বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে অবতরণ কেন্দ্রে কর্মযজ্ঞ যেমন শুরু হবে তেমনি দরের পতন ঘটবে বলেও জানান তিনি।এদিকে মাছের পাইকারি ব্যবসায়ী আব্দুর রব বলেন,বর্তমান সময়টা ইলিশের মৌসুম নয়, এসময় নদীতে পানি কম থাকে, ইলিশসহ সব মাছই কম থাকে। জেলেরা নদীতে নেমেছেন ঠিকই তবে আশানুরূপ মাছের খবর মেলেনি এখনো। বাজারে বর্তমানে আমদানি কম থাকায় সব মাছের দামই চড়া। যেমন মাসখানেক আগে ৩শ’ টাকা কেজির টেংরা এখন ৫শ’ টাকায় গিয়ে ঠেকেছে।তিনি বলেন,আষাঢ়ের আগে ইলিশের আমদানি আশানুরূপ বাড়ার সম্ভাবনা নেই। সে সময় ইলিশের আমদানি যেমন বাড়বে তেমন অন্য সব মাছের আমদানি বাড়বে। তবে আগামী ২০ মে থেকে শুরু হতে যাচ্ছে ৬৫ দিনের নিষেধাজ্ঞা। এবারই প্রথম কার্যকর হতে যাওয়া ৬৫ দিনের এ নিষেধাজ্ঞা জেলে-ব্যবসায়ীসহ সংশ্লিষ্ট সবাইকে ভোগান্তিতে ফেলবে। কারণ ইলিশের মৌসুমটাও তখন থাকবে।তবে ব্যবসায়ীরা বলছেন,যদি নিষেধাজ্ঞার সময় ইলিশ শিকার শতভাগ নিয়ন্ত্রণ অর্থাৎ বন্ধ রাখা যায় তবে বছরের বাকি সময়গুলোতে ক্ষতি পুষিয়ে নেওয়া যেতে পারে।

Top
%d bloggers like this: